সাগরে ২, নদীতে ১ নম্বর সংকেত

শক্তি বাড়াচ্ছে গভীর নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড় হওয়া ‘আম্ফান’

গভীর সাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’-এ পরিণত হয়েছে। শনিবার (১৬ মে) রাত ৯টায় গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়। সাগর বিক্ষুব্ধ থাকায় সব সমুদ্র বন্দরে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত এবং নদী বন্দরে ১ নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এদিকে ঘূর্ণিঝড়টি শক্তি বাড়াচ্ছে, এর কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এদিকে ঝড়টি কোন উপকূলে আছড়ে পড়বে তা এখনই নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না সংশ্লিষ্টরা। তবে বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের দিকে এগোবে বলে আশঙ্কা করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন বলেন, গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। এখন আমরা এর গতি প্রকৃতির দিকে নজর রাখছি। গতির কারণে মনে হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ অথবা বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

তিনি আরও বলেন, অনেক সময় তিন চারদিন পর্যন্ত ঝড় সাগরেই অবস্থান করে। এতে অনেক সময় শক্তিশালী হয়ে সামনে এগিয়ে আসে আবার অনেক সময় দুর্বল হয়ে যায়।
বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার সাইক্লোন সংক্রান্ত আঞ্চলিক সংস্থা এসকাপে সূত্রে জানা যায়, থাইল্যান্ডের দেওয়া নামেই এবারের ঝড়ের নামকরণ করা হয়েছে।

এর আগে গত বছর নভেম্বরে দেশের উপকূলে আঘাত হানে ঘুর্ণিঝড় বুলবুল। এই নামটি পাকিস্তানের দেওয়া ছিল।

আবহাওয়ার সতর্কবার্তায় বলা হয়, দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর ও দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও সামান্য উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে একই এলাকায় ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’-এ পরিণত হয়েছে। এটি এখন চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ৩৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১২৯০ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ২৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে এক হাজার ২৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

জানা যায়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রবিবার (১৭ মে) সকাল ৯টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদী বন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট, বগুড়া, কুমিল্লা এবং টাঙ্গাইল অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। একইসঙ্গে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ২ নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের অন্য অঞ্চলগুলর ওপর দিয়ে একই দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। একইসঙ্গে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদী বন্দরগুলোকে ১ নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ এবং বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্য এলাকার আকাশ মেঘলাসহ আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে।

ad
ad

জাতীয় সর্বশেষ

ad
ad

জাতীয় সর্বাধিক পঠিত

আগের সংবাদ
পরের সংবাদ