করোনা থেকে বেঁচে গেলে যা যা করবেন প্রবাসী শিল্পীরা (ভিডিও)

৮০ ও ৯০ দশকের অনেক টিভি প্রিয়মুখ স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে বেছে নিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। যার মধ্যে অধিকাংশই রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। এছাড়াও আছেন যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে।

এমনই ২২ জন প্রবাসীশিল্পী এবারই প্রথম এক হলেন। দিলেন বিশেষ একটি বার্তা। যে বার্তাটি তারা মূলত পাঠালেন মাতৃভূমির কাছে। চলমান করোনাকালে তারা নিজ নিজ ঘরে থেকে তৈরি করলেন একটি কবিতা-ভিডিও। যে কবিতার পরতে পরতে রয়েছে করোনাকাল জয় করে বাঁচার আকুতি। বাঁচলে কে কী করবেন, সেই শপথটুকুও করেছেন তারা।
কবিতার কথাগুলো এমন- এ যাত্রায় বেঁচে গেলে, ভীষণ করে বাঁচবো/ সবাইকে জড়িয়ে ধরে, অনেক করে কাঁদবো/ এ যাত্রায় রেহাই যদি পাই, অন্যের কথা ভাববো/ যার যেখানে অংশ আছে, হিসাবগুলো চুকিয়ে দেবো…। যদি নাই বাঁচেন, তো কী করবেন- দীর্ঘ এই কবিতার শেষাংশে জানিয়েছেন সেই কথাটিও।
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নওশীন নাহরিন মৌয়ের পরিকল্পনায় বিশেষ এই কাজটি নির্মাণ করেছেন টনি ডায়েস। যা ফেসবুকে উন্মুক্ত হলো ১৮ এপ্রিল সন্ধ্যায়। আবেগের সুতোয় বোনা কবিতাটি লিখেছেন সহস্র সুমন। শিল্পীদের আবৃত্তির পেছনে আবহসংগীত দিয়ে কাজটিতে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছেন মারভিন অধিকারী।
আবৃত্তিতে অংশ নেওয়া প্রবাসী শিল্পীদের মধ্যে রয়েছেন তানিয়া আহমেদ, মোনালিসা, রুমানা, জামাল উদ্দিন হোসেন, মিলা হোসেন, শামীম শাহেদ, শিরিন বকুল, শ্রাবন্তী, কাজী উৎপল, তমালিকা কর্মকার, ডলি জহুর, শামসুল আলম বকুল, প্রিয়া ডায়েস, মহসিন রেজা, হিল্লোল, আফরোজা বানু, নওশীন নাহরিন মৌ, খাইরুল ইসলাম পাখি, রওশন আরা, টনি ডায়েস ও লুৎফুন নাহার লতা।
আবৃত্তি শেষে চিকিৎসক, সাংবাদিক, ব্যাংকার, ডেলিভারিম্যানসহ এমন করোনা যোদ্ধাদের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন রিচি সোলায়মান।
কাজটি প্রসঙ্গে টনি ডায়েস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে বিদেশের মাটিতে নিজ নিজ ঘরে বসে কাজটি করলাম। সবাইকে এক ভিডিওতে করতে পেরে মনটা ভরে গেছে। জীবনটা খুব ছোট। কতো তাড়াতাড়ি চলে যায় মানুষ। কাজটি যখন প্যানেলে বসে এডিট করছিলাম বারবার চোখ ঝাপসা হয়ে আসছিল। এ যাত্রায় বেঁচে গেলে সত্যিই নতুনকরে বাঁচবো আমরা।’
টনি আরও জানান, এই ভিডিওটি বাংলাদেশের সকল মানুষদের জন্য তাদের পক্ষ থেকে উপহার। বলেন, ‘আমরা সবাই বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন শহরে আছি। কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছি না। কারণ আমরা অদৃশ্য শত্রুর সঙ্গে যুদ্ধ করছি। সবাই বাঁচতে চাই, কাউকে হারাতে চাই না। তাই চলুন, আমরা নিজ নিজ ঘরে থেকে এই সুন্দর পৃথিবীতে বাঁচার চেষ্টা করি। শপথ করি, সুন্দর জীবনের।’

সব সময় চাই কাজ করলে ভাল কিছু করার।যা দেখে মানুষের মনটা ভাল হবে।আমরা সবাই মিলে বিদেশের মাটিতে ঘরে বসে একটা কাজ করলাম।সবাইকে এক ভিডিওতে দেখে খুব ভাল লাগলো।মনটা ভরে গেছে সবাইকে দেখে।বিশেষ করে সিনিয়র শিল্পীদের পেয়ে।জীবনটা খুব ছোট কত তাড়াতাড়ি চলে যায়। এডিট করতে গিয়ে বারবার কম্পিউটার পর্দাটা ঝাপসা দেখছিলাম।আমাদের এই ভিডিওটি বাংলাদেশের সকল মানুষদের জন্য আমাদের ভালবাসা।সেই সাথে যারা এই যুদ্ধে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অন্যদের জন্য কাজ করছে।আমরা কাউকে হারাতে চাইনা।সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি এই সুদর পৃথিবীতে সবাইকে নিয়ে থাকতে চাই।চলে যাতে চাই স্বাভাবিক নিয়মে। সবাইকে অনেক ধন্যবাদ আমার ডাকে সাড়া দেয়ার জন্য।ভাল লেগেছে সবাই মিলে করতে পেরেছি বলে। বিশেষ ধন্যবাদ বন্ধু মুশফিকুর রাহমানকে, আমাকে খোঁচানোর জন্য।ধন্যবাদ সহস্র সুমনকে মন ভাল করা কবিতা লেখার জন্য।অনেক কৃতজ্ঞ মারভিন অধিকারীর প্রতি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য।চমৎকার সাউন্ড ট্র্যাক তৈরী করার জন্য।❤️❤️#fastresponder #frontline #medicalworker #Journalists

Posted by Tony Dias on Saturday, April 18, 2020

ad
ad

বিনোদন সর্বশেষ

ad
ad

বিনোদন সর্বাধিক পঠিত

আগের সংবাদ
পরের সংবাদ