এমপি প্রার্থী হতে পাপিয়া খরচ করেছিলেন ১০ কোটি!

শামীমা নূর পাপিয়া, এখন দেশব্যাপী আলোচিত মুখ। ছিলেন নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু বিভিন্ন অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি তাকে যুব মহিলা লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। বর্তমানে তিন মামলায় ১৫ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন আলোচিত এই নারী।

সদ্য বহিষ্কৃত যুব মহিলা লীগের নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। এ জন্য তিনি খরচ করেছিলেন ১০ কোটি টাকা।
আর তিন কোটি টাকা খরচ করেছিলেন নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে।

রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ও তার স্বামী এ তথ্য জানিয়েছেন বলে তদন্তকারী সূত্রের বরাতে গণমাধ্যমে উঠে এসেছে এ খবর।

সূত্র জানিয়েছে, ডিবিতে জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরী অনেক তথ্য দিচ্ছেন। তাদের কখনও আলাদাভাবে, কখনও দুজনকে মুখোমুখি করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। রিমান্ডে তাদের দুই সহযোগী সাব্বির ও তায়্যিবাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।

পাপিয়া ও সুমন চৌধুরীর অপরাধ জগত সম্পর্কে তায়্যিবা ডিবিকে জানিয়েছেন, অনেক সময় চাহিদামতো থাইল্যান্ড, নেপাল, ভারত, ভুটান ও রাশিয়া থেকে মেয়েদের নিয়ে আসা হতো। পার্বত্য অঞ্চল থেকেও পাহাড়ি মেয়েদের নিয়ে আসতেন পাপিয়া।

এদিকে, পাপিয়ার অনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় চলার মধ্যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার বলেছেন, ‘পাপিয়ার পেছনে যাঁরা আছেন, তারাও নজরদারিতে রয়েছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু পাপিয়া নয়, অপকর্ম, সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও মাদকের সঙ্গে যারাই জড়িত, তাঁরা নজরদারিতে আছেন। টার্গেট পূরণ না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেতা শামিমা নূর পাপিয়ার অনৈতিক কর্মকাণ্ডে দল বিব্রত। শুধু পাপিয়া নয়, দুষ্কৃতকারীদের গডফাদারদেরও আইনের আওতায় আনা হবে। কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।’

ad
ad

অপরাধ সর্বশেষ

ad
ad

অপরাধ সর্বাধিক পঠিত

আগের সংবাদ
পরের সংবাদ