Templates by BIGtheme NET
Home / slider / যুক্তরাষ্ট্রের বাড়ি-গাড়ি বিক্রি করে দিয়েছেন এসকে সিনহা

যুক্তরাষ্ট্রের বাড়ি-গাড়ি বিক্রি করে দিয়েছেন এসকে সিনহা

Loading...

বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহা কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়ে আবেদন করেছেন, এমন খবর এসেছে দেশটির বিভিন্ন গণমাধ্যমে। কানাডার দি স্টার পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী, গত ৪ জুলাই ফোর্ট এরি সীমান্ত হয়ে সিনহা কানাডায় প্রবেশ করেন। এ সময় তিনি সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন জমা দেন। এছাড়াও কানাডিয়ান কুরিয়ার জানিয়েছে, সিনহার সঙ্গে তার স্ত্রী সুষমাও কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন।

জানা যায়, কানাডায় করা রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদনে উল্লেখ করা হয়, ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সরকারের সঙ্গে তার টানাপোড়েন চলছে বলে জানিয়েছে দি স্টার পত্রিকাটি।

সিনহা সেখানে দাবি করেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৭ সালের ২ জুলাই এক বৈঠকে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে মামলায় ‘সরকারের পক্ষে রায় দিতে বলেছিলেন তাকে। কিন্তু তাতে রাজি না হওয়ায় তাকে দেশ ছাড়তে হয়েছে।

এ বিষয়ে দি স্টারকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসকে সিনহা বলেন, আমাকে টার্গেট করা হয়েছে। কারণ বিচারক হিসেবে আমি ছিলাম একজন অ্যাকটিভিস্ট। আমি যেসব রায় দিয়েছি তাতে আমলাতন্ত্র, প্রশাসন, রাজনীতিবিদ, এমনকি সন্ত্রাসীরাও ক্ষিপ্ত হয়েছে। আমি এখন নিজের দেশেই অবাঞ্ছিত।

এস কে সিনহার অভিযোগের বিষয়ে কানাডায় বাংলাদেশ হাই কমিশনারের প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়েছিল দি স্টার। হাই কমিশনার মিজানুর রহমান তাদের বলেছেন, দেশ ছাড়ার পর থেকেই তিনি (সিনহা) সরকারের সম্পর্কে এ ধরনের বক্তব্য দিয়ে আসছেন, যেগুলো সঠিক নয়। তার দেশে ফেরার ক্ষেত্রেও কোনো বাধা বা হুমকি নেই। এসব কথা তিনি বলছেন শুধু তার রাজনৈতিক আশ্রয়ের দাবি পোক্ত করার জন্য ।

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এবং কিছু পর্যবেক্ষণের কারণে ক্ষমতাসীনদের তোপের মুখে ২০১৭ সালের অক্টোবরের শুরুতে ছুটিতে যান তখনকার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা। পরে বিদেশ থেকেই তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন।

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

19 − 6 =