Templates by BIGtheme NET
Home / slider / ডাক্তারদের যত বিল তত কমিশন

ডাক্তারদের যত বিল তত কমিশন

Loading...

সেবার আশায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলেও কমিশন ফাঁদে নিঃস্ব হচ্ছেন রোগীরা। অসাধু চিকিৎসকের প্রতারণায় বাড়ছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যয়। কমিশনের আশায় নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কথা বলে রোগীদের ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে ডজনখানেক পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফর্দ। যত বিল তত কমিশনের আশায় কিছু কোম্পানির ওষুধ লেখা হয় রোগীর প্রেসক্রিপশনে। ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ কমিশন নেওয়ার অভিযোগ উঠলেও কমছে না রোগকে পুঁজি করে গড়ে তোলা ব্যবসা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. সৈয়দ আবদুল হামিদ বলেন, ‘যে ডাক্তার যার কাছে বিক্রি হয়েছেন, তিনি সেই কোম্পানির ওষুধ লেখেন। তিনি ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে টেস্টের জন্য রোগী পাঠান। স্বাস্থ্য ব্যয়ের জায়গা হলো ওষুধ, ডায়াগনস্টিক সেন্টার; হাসপাতালে ভর্তি হলে শয্যা ভাড়া আর কনসালট্যান্সি। ওষুধ কোম্পানির কাছে চিকিৎসকরা কমিশন নিলে মার্কেটিং খরচ বাড়ায় দাম বৃদ্ধি পায় ওষুধের। একইভাবে রেফারেন্সে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কমিশনের জন্য রোগী পাঠানোর কারণে বেড়ে যায় রোগীর চিকিৎসা ব্যয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে চিকিৎসকদের কমিশন নেওয়া এখন ওপেন সিক্রেট। এজন্য ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ক্যাটাগরি করে প্যাথলজি ফি নির্ধারণ করে দিতে হবে। নির্ধারিত এ ফি প্রতিটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে বিলবোর্ডে প্রদর্শিত হতে হবে। উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্ত ছাড়া এ কমিশন বাণিজ্য ঠেকানো সম্ভব নয়।’

সরেজমিন রাজধানীর কয়েকটি সরকারি হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, সকাল ৯টা বাজতেই হাসপাতালের বহির্বিভাগে রোগীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়তে থাকে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধির ভিড়। ডাক্তার দেখিয়ে ফিরলেই রোগীর জন্য কোন কোম্পানির ওষুধ লেখা হয়েছে তা দেখতে শুরু হয় কাড়াকাড়ি। এরপর রোগীদের পাশ কাটিয়ে ডাক্তারের রুমে মার্কেটিংয়ের জন্য ঢুকে পড়েন তারা। বিভিন্ন গিফট ও কমিশনের বিনিময়ে নিজস্ব কোম্পানির ওষুধ লেখার প্রস্তাব দেওয়া হয় চিকিৎসকদের। ওষুধের প্রয়োজনীয়তা ও মান যাচাই না করে কমিশনের লোভে একশ্রেণির অসাধু চিকিৎসক হাত মেলান এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে। একই অবস্থা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ক্ষেত্রেও। রোগ নির্ণয়ে প্রয়োজনের চেয়ে অতিরিক্ত টেস্ট ও নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নাম হাতে ধরিয়ে দেওয়া হাসপাতালগুলোর নিয়মিত চিত্র। শুধু কমিশনপ্রত্যাশী চিকিৎসক নন, কম যান না হাসপাতালের নার্স ও কর্মচারীরা। মেশিন নষ্টকে হাতিয়ার বানিয়ে রোগী পাঠিয়ে দেওয়া হয় চুক্তিবদ্ধ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোয় বিভিন্ন টেস্টের জন্য রাখা হয় বিভিন্ন রকম দাম। যে যার ইচ্ছামতো দোকানঘর ভাড়া নিয়ে খুলে বসেছেন ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এসব ডায়াগনস্টিক সেন্টার অধিকাংশই গড়ে ওঠে সরকারি হাসপাতালের আশপাশের অলিগলিতে। শ্যামলী, মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডির অধিকাংশ আবাসিক ভবনে লাগানো আছে বাহারি নামের ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নাম।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, মোহাম্মদপুরের বাবর রোড, খিলজি রোডে গড়ে ওঠা অধিকাংশ ডায়াগনস্টিক সেন্টার লাইসেন্স নবায়ন না করেই টেস্ট চালিয়ে যাচ্ছে। এসব প্যাথলজি সেন্টারের মধ্যে রয়েছে বিটিএস হাসপাতাল, নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা মানসিক ও মাদকাসক্ত হাসপাতাল, ভাইটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মালিহা হাসপাতাল, ন্যাশনাল ডায়াগনস্টিক কমপ্লেক্স, রয়্যাল মাল্টিস্পেশালিটি হসপিটাল, ইবাদ মেডিকেল ল্যাব, জয়িতা নীড় মেডিকেল সেন্টার, সেইফ হাউস মানসিক ও মাদকাসক্ত হাসপাতাল, শেফা হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার। অবৈধভাবে চলা এসব প্রতিষ্ঠানে রোগী আসছে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকের রেফারেন্সে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘এসব হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার লাইসেন্স নবায়ন করেনি। ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এর পরও কেউ অবৈধভাবে প্রতিষ্ঠান চালালে তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ ভাইটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ছেলের হাত এক্স-রে করাতে এসেছিলেন আবদুল ওহাব মিয়া। ছেলে কোন হাসপাতালে ভর্তি জানতে চাইলে জানান পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন। এখানে কেন এক্স-রে করাতে এসেছেন— জানতে চাইলে বলেন, ‘হাসপাতালের ওয়ার্ডবয় বলল এক্স-রে মেশিন নষ্ট। তাই সে-ই সঙ্গে করে এখানে নিয়ে এসেছে।’ ওই ওয়ার্ডবয়ের কাছে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আনার কারণ জানতে চাইলে বলেন, ‘এত কথা শুনে আপনার কী কাজ।’ শুধু রোগী ভাগানো নয়, প্যাথলজি ফির দাম নিয়েও চলছে নৈরাজ্য। একই নমুনা পরীক্ষার ফি প্রতিষ্ঠানভেদে একেকরকম। সরকারি হাসপাতালে কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (সিবিসি) বা রক্তের সাধারণ নমুনা পরীক্ষায় খরচ পড়ে ৫০ টাকা। আর যে কোনো বেসরকারি হাসপাতাল কিংবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে খরচ পড়ে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা। সরেজমিন দেখা গেছে, রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে সিবিসি পরীক্ষার চার্জ ৪০০ টাকা। এখান থেকে খানিকটা দূরে যাত্রাবাড়ীর শহীদ ফারুক রোডে তুলনামূলক নিম্নমানের প্রিমিয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও চার্জ ৪০০ টাকা। তার পাশেই অবস্থিত আল-বারাকাহ ডায়াগনস্টিক সেন্টার অ্যান্ড হাসপাতালে চার্জ ৪৯৫ টাকা। এখান থেকে একটু পশ্চিমে অবস্থিত আশা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চার্জ ৩০০ টাকা। এর সংলগ্ন সমকাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সিবিসি ও ব্লাড ফিল্মের প্যাকেজ মূল্য ৫০০ টাকা। এসব হাসপাতাল থেকে রোগীপ্রতি কমিশন তুলছেন অধিকাংশ চিকিৎসক। সরকারি হাসপাতালগুলোয় দিনদুপুরে চলে কমিশনের মহোৎসব। কর্তৃপক্ষের চোখের সামনে দিনের পর দিন রোগীকে জিম্মি করে ব্যবসা চালিয়ে গেলেও এসব প্রতারকের বিরুদ্ধে নেই কোনো ব্যবস্থা। পেশেন্ট ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ রাকিবুল ইসলাম লিটু বলেন, ‘রোগীদের অজান্তে অধিকাংশ চিকিৎসক জড়িয়ে পড়ছেন কমিশন বাণিজ্যে। হার্ট রিংয়ের দাম যেমন নির্দিষ্ট করা হয়েছে একইভাবে প্যাথলজির ফিও নির্দিষ্ট করতে হবে। অসাধু চিকিৎসকদের কমিশন গ্রহণের কারণে চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত মানুষের নাভিশ্বাস উঠে যায়।’ সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেন, ‘রোগ নির্ণয়ে ও স্বাস্থ্যসেবা ব্যয় কমাতে প্যাথলজির মান এবং দাম নির্ধারণ করা জরুরি হয়ে পড়েছে। নির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত না থাকায় রোগ নিয়ে ব্যবসা চলছে। অসাধু কিছু চিকিৎসকের কমিশন বাণিজ্যের কারণে পেশার নৈতিকতা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।’ সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

14 − three =