Templates by BIGtheme NET
Home / slider / আপনার উপর কি কুরবানি ওয়াজিব?

আপনার উপর কি কুরবানি ওয়াজিব?

Loading...

বাংলাদেশে আগামী ২২আগস্ট বুধবার পালিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদুল আজহার বড় একটি অনুসঙ্গ কুরবানি। আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় এই ঈদে মুসলিম উম্মাহ পশু কুরবানি করে থাকে। মূলত মনের পশুত্বকে কুরবানি করে আল্লাহর নৈকট্য এবং পুণ্য অর্জনের জন্যই করা হয় কুরবানির এই বরকতময় আমল।

কিন্তু আমাদের সমাজের কিছু সামর্থ্যবান মানুষ আছেন যারা অজ্ঞতাবশতঃ কুরবানির এই বিরাট ফজিলত অর্জন থেকে বঞ্চিত হয়ে যান। আসুন, কুরবানি সম্পর্কিত কিছু মাসয়ালা থেকে জেনে নেই কার উপর কুরবানি করা ওয়াজিব। আশা করি এই মাসয়ালাগুলো থেকে আমরা নিজেরাও কিছু শিখবো। পাশাপাশি অন্যদের কাছেও বিষয়গুলো তুলে ধরবো:

১০ যিলহজ ফজর থেকে ১২ যিলহজ সুর্যাস্ত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে যদি কোন সুস্থমস্তিষ্ক, প্রাপ্তবয়স্ক, মুসলিম নর-নারী ঋনমুক্ত থাকা অবস্থায় প্রয়োজনের অতিরিক্ত নেসাব পরিমান সম্পদের মালিক হয় তবে তার কুরবানী করা ওয়াজিব। (রদ্দুল মুহতার ৬/৩১২)

মাসয়ালা: নাবালেগ ও পাগল নেসাবের মালিক হলেও তাদের উপর কুরবানী ওয়াজিব নয়। তবে তাদের অভিভাবক নিজ সম্পদ দ্বারা তাদের পক্ষে থেকে কুরবানী করলে তা সহীহ হবে। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৬)

মাসয়ালা: মুসাফিরের উপর কুরবানী ওয়াজিব নয়। মুসাফির দ্বারা উদ্দেশ্য হল যে ব্যক্তি কমপক্ষে ৪৮ মাইল সফরের নিয়তে নিজ এলাকা ত্যাগ করেছে। (আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩১৫)

মাসয়ালা: কুরবানী ওয়াজিব হওয়ার জন্য কুরবানীর তিন দিনই মুকীম থাকা জরুরী নয়।বরং কেউ যদি এই ৩দিনরে শুরুতে মুসাফির থাকে এবং শেষের দিকে মুকীম হয়ে যায় তবে নেসাবের মালিক হলে তার উপরে কুরবানী ওয়াজিব হবে।তবে কেউ যদি এই ৩দিনরে শুরুতে মুকীম থাকে এবং শেষের দিকে মুসাফির হয়ে যায় তাহলে তার উপরে কুরবানী ওয়াজিব হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে -৪/১৯৫)

মাসয়ালা: কুরবানী শুধু নিজের পক্ষ থেকে ওয়াজিব হয়। মাতা পিতা সন্তানাদি ও স্ত্রীর পক্ষ থেকে করলে তা নফল হবে । (রদ্দুল মুহতার -৬/৩১৬)

মাসয়ালা: গরীব ব্যক্তির উপর কুরবানী করা ওয়াজিব নয়। তবে সে কুরবানীর নিয়তে কোন পশু ক্রয় করলে সেই পশু কুরবানী করা তার উপর ওয়াজিব হয়ে যায়। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯২)

মাসয়ালা: যে সকল হাজী মক্কা,মিনা ও মুযদালেফা মিলে কুরবানীর সময় ১৫ দিন থাকবে তারা মুকীম। নেসাবের মালিক হলে হজ্বের কুরবানী ব্যতীত তাদের উপর ঈদুল আযহার কুরবানীও ওয়াজিব। আর যারা মুসাফির থাকবেন তাদের উপর কুরবানী ওয়াজিব নয়। (ফাতাওয়া হিন্দীয়া ৫/২৯৩)

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

13 − 3 =