Templates by BIGtheme NET
Home / slider / বাতিল হলো উচ্চভিলাষি পাকফা প্রকল্প

বাতিল হলো উচ্চভিলাষি পাকফা প্রকল্প

Loading...

অবশেষে বাতিলই হয়ে গেল ৫ম প্রকল্পের স্টেলথ জঙ্গি বিমান তৈরীর জন্য ভারত-রাশিয়া যৌথ প্রকল্প। সু-৫৭ বা পাকফা নামে পরিচিত এই প্রকল্প বাতিল ঘোষণা করেছে রাশিয়া। সু-৫৭ জঙ্গি জেট বিমান নির্মাণ বাতিলের মাধ্যমে রাশিয়া কার্যত তাদের পঞ্চম প্রজন্মের স্টেলথ জঙ্গি বিমান তৈরির কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ করে দিলো।

রাশিয়ার সু-৫৭ বিমান নিয়ে ভারত ‘খুব একটা খুশি নয়’ এবং তারা রাশিয়ার সাথে দশ বছরের পুরনো এই সহযোগিতামূলক কর্মসূচি থেকে বেরিয়ে আসতে চায় – এ ধরনের যে সব গুজব শোনা গিয়েছিল, রাশিয়ার এ ঘোষণার মাধ্যমে সে সবের অবসান ঘটলো। কয়েক বছর ধরে এই প্রকল্পটি শেষ করার ব্যাপারে ভারত বা রাশিয়া কোন সরকারের পক্ষ থেকেই কোন কিছু জানানো হয়নি। এটা নিয়ে তাই প্রতিরক্ষা মহলে বিভ্রান্তি ছিল। তবে, রাশিয়ার সহকারী প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ইউরি বোরিসভ সম্প্রতি রাশিয়ান টেলিভিশনে বলেছেন যে, পঞ্চম প্রজন্মের এই বিমানটি তৈরির আর কোন অর্থ হয় না। বিতর্কিত ইন্দো-রাশিয়ান প্রতিরক্ষা কর্মসূচিটির ভাগ্য মনে হচ্ছে নির্ধারিত হয়ে গেছে।

বহু বিলিয়ন ডলারের পঞ্চম প্রজন্মের জঙ্গি বিমান প্রকল্প যেটা এফজিএফএ নামে পরিচিত, সেটা ছিল উন্নত ধরনের সু-৫৭ তৈরির জন্য দুই দেশের একটা সম্মিলিত প্রচেষ্টা। হিন্দুস্তান অ্যারোনটিকস লিমিটেড (এইচএএল) এবং রাশিয়ার সুখোই কোম্পানির মধ্যে ১০০টি এফজিএফএ তৈরির ব্যাপারে চুক্তি হয়েছিল। এগুলোর অধিকাংশই ভারতে তৈরির কথা ছিল।

একটি সূত্র জানিয়েছে, ‘ইঞ্জিন সমস্যা এবং এফজিএফএ’র স্টেলথ সিস্টেম যথেষ্ট আধুনিক না হওয়ায় কয়েক বছর ধরে প্রকল্পের কাজ থমকে ছিল। শুধু চারটি মাত্র প্রোটোটাইপ জঙ্গিবিমান তৈরিতেই অস্বাভাবিক ছয় বিলিয়ন ডলার বিনিময় হয়েছে।’

বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আরতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, এফজিএফএ প্রকল্পটি এক দশকেরও বেশি পুরনো। মূল পরিকল্পনা ছিল রাশিয়ার স্টেলথ জঙ্গি বিমানের আদলে বিমান তৈরি করা। এর সাথে ভারতের বিকল্প বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র, যোগাযোগ যন্ত্রপাতি এবং স্টেলথ প্রযুক্তি সংযুক্ত করার ব্যবস্থা থাকবে। কিন্তু বিমানের যে ডিজাইন, সেটা কাক্সিক্ষত স্টেলথ প্রযুক্তি সংযুক্ত করার উপযুক্ত ছিল না। তাছাড়া কোন পক্ষই সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি কিভাবে বিমানের উৎপাদন, খরচ এবং প্রযুক্তিগত উন্নয়নকে আলাদা করা যাবে”।

ভারতীয় বিমান বাহিনী প্রকল্পটি থেকে নিজেদের সরিয়ে নিয়েছে বলে জানা গেছে। এফজিএফএ’র সীমিত সক্ষমতা এবং এর বেশ কিছু প্রযুক্তি মার্কিন এফ-৩৫ এবং এফ-২২ জঙ্গি বিমানের তুলনায় নিম্নমানের হওয়ায় এখান থেকে নিজেদের সরিয়ে নিয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনী। বিমান বাহিনীও চেয়েছিল প্রকল্পটি বাতিল করা হোক। গত দুই বছরে বিভিন্ন সময়ে তারা বিষয়টি নিয়ে জানিয়েও ছিল।

এফজিএফএ কর্মসূচিটি পরীক্ষা করার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় একটি কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। এই কমিটি অবশ্য গত বছর তাদের রিপোর্টে সুপারিশ করেছিল যে ভারতের এফজিএফএ তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া উচিত। সাউথ এশিয়ান মনিটর, জেন্স ডিফেন্স

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

sixteen − seven =