Templates by BIGtheme NET
Home / slider / বিনা খরচে ২৪ রাজ্য ভ্রমণ!

বিনা খরচে ২৪ রাজ্য ভ্রমণ!

Loading...

অর্থ নয়, ইচ্ছে থাকলেই উপায় হয়। চিরাচরিত সেই প্রবাদটি প্রমাণ করে দেখালেন ২৮ বছর বয়সী অন্স মিশ্র।
এক পয়সাও খরচ না করে সেরে ফেললেন রাজ্য ভ্রমণ। এলাহাবাদ টেকনিক্যাল কলেজের ছাত্র অন্স মিশ্র ২৫০ দিনের ব্যবধানে দেশের ২৪টি রাজ্য এবং চারটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে সফর করে ফেলেছেন। যাওয়া-আসা বা খাওয়া-দাওয়ার জন্য তাঁকে একটি পয়সাও খরচ করতে হয়নি।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের তিন তারিখে যাত্রা শুরু করেছিলেন অন্স। জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে যাওয়া বিভিন্ন ট্রাকে করেই চষে ফেলেছেন গোটা দেশ। সবক্ষেত্রেই নিজেকে উপস্থাপিত করতে হয়েছিল উক্ত ট্রাক চালকদের অতিথি হিসেবে। ভারতীয় সংস্কৃতিতে অতিথিকে ঈশ্বরের সমতুল মনে করা হয়। সেই প্রবাদটি মাথায় রেখেছিলেন ট্রাকচালকরা। সেই কারণেই অতিথি সেবার কোনো ত্রুটি রাখেননি।
সাধ্য মতো খাবারের ব্যবস্থা করেছিলেন পর্যটক অন্সের জন্য। শুধু আহার নয়, অন্যান্য বেশ কিছু সুবিধাও জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে যাওয়া ট্রাক চালকদের থেকে পেয়েছিলেন অন্স মিশ্র। তাঁর কথায়, “সমগ্র যাত্রাপথে আমি ১,৮০০টি ট্রাকে উঠেছি। অনেক রাত কাটাতে হয়েছে ট্রাকের নিচে শুয়ে। ট্রাক চালকদের তৈরি করা খাবার খেয়েই দিন কাটাতে হয়েছে। ”

সমগ্র যাত্রা খুব একটা সহজ ছিল না অন্স মিশ্রের কাছে। বিভিন্ন সময়ে সামনে এসেছে অনেক প্রতিকূলতা। গুজরাটের সুরাতে একটি গাড়ি পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছিল নয় ঘণ্টা। সেই সময়েই ২৬ ঘণ্টা কাটাতে হয়েছিল কিছু না খেয়ে। দক্ষিণ ভারতের রাজ্য কেরলে এক সন্দেহভাজন ব্যক্তির সঙ্গে দেখা হয়েছিল। শুধু তাই নয়, কেরলের সাধারণ মানুষেরাও সাহায্যের জন্য খুব একটা আগ্রহ দেখায়নি বলে জানিয়েছেন পর্যটক অন্স মিশ্র।

যাত্রা পথে ছত্তিসগড়ের বাস্তার এলাকায় সুন্দর অভিজ্ঞতা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অন্স। মাওবাদী অধ্যুষিত জায়গাটি পর্যটনের জন্য খুবই আকর্ষক বলেও দাবি করেছেন তিনি। এক সময় মাওবাদীদের উপদ্রব থাকলেও এখন আর সেই সমস্যা নেই বলে জানিয়েছেন অন্স মিশ্র। তাঁর মতে, “বাড়ির লোকেরা আমায় ওই এলাকায় যেতে বারণ করেছিল। আমি বাস্তার এলাকায় গিয়েছিলাম, ওখানে আমি বিন্দুমাত্র ভীতি অনুভব করিনি। ” উক্ত এলাকায় পর্যটন শিল্পের উন্নতির জন্য উদ্যোগ নেওয়া হলে খুব ভালো হবে বলেও জানিয়েছেন পর্যটক অন্স মিশ্র।

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

six + ten =