অস্বাস্থ্যকর হয়ে উঠছে পদ্মার পাড়ের বিনোদনকেন্দ্র

Loading...

রাজশাহীর নগরীর অন্যতম প্রধান বিনোদনকেন্দ্র পদ্মা নদীর পাড়। এলাকাটি নির্মল ও বিশুদ্ধ বাতাসের অন্যতম উৎস। তবে সমপ্রতি নগরবাসীর অসচেতনতায় ও একটি অসাধু চক্রের পাল্লায় পড়ে নদীর এই বিনোদনকেন্দ্র প্রতিনিয়তই অস্বাস্থ্যকর হয়ে উঠছে। সাথে অবৈধভাবে দখল হয়ে যাচ্ছে নদীর তীরবর্তী এলাকা। নির্মল এ বিনোদনককেন্দ্র এভাবে নোংরা আর অবৈধভাবে দখল হয়ে হতে থাকলেও কর্তৃপক্ষ নিশ্চুপ থাকায় জনমনে বাড়ছে ক্ষোভ। সমপ্রতি নগরীর পদ্মার পাড় এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পদ্মার পাড়ের এই এলাকায় প্রকাশ্যেই ফেলা হচ্ছে আশপাশের বাড়ির ময়লা-আবর্জনা।

এ আবর্জনার মধ্যে রয়েছে পরিবেশের জন্য মারত্মক ক্ষতিকর পদার্থ পলিথিন ও প্লাস্টিক। আর এই আবর্জনার ফলে নদীর পাড়ে চলাফেরায় বেগ পেতে হচ্ছে নগরবাসীকে। সকালে ও বিকেলে বিভিন্ন বয়সের মানুষেরা নদীর পাড়ে আসে হাটতে ও নদীর মনোরম পরিবেশ উপভোগ করতে। তবে এই নদীর পাড়ের বেশ কিছু স্থানে আশপাশের এলকার মানুষ তাদের বাড়ির ময়লা-আবর্জনা ও গবাদি পশুর মল ফেলে রাখছে। দীর্ঘদিন হতে এভাবে এই স্থানগুলোতে ময়লা ফেলে রাখায় নদীর ধারে ময়লার স্তূপ হতে শুরু করেছে। রাজশাহী নগরীর নদী তীরবর্তী এলাকাটিকে বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য যা কিছু করণীয় তার অধিকাশই করা হয়েছিল বিগত মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের আমলে। এর মধ্যে অন্যতম হল নগরীর পাঠান পাড়া এলাকার নদী তীরবর্তী লালন চত্বর। তবে এর পূর্বদিকে স্থানীয়দের ফেলা ময়লা-আবর্জনা ও গমাদিপশুর মলের কারণে এখন নদী তীরবর্তী এই এলাকা দিয়ে চলাফেরা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

Loading...

এদিকে বিষয়টি নিয়ে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, আমরা এবিষয়ে স্থানীয় জনগণের সচেতনতা ও সহযোগিতা কামনা করছি। আর করপোরেশনে এই মূহুর্তে নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট না থাকায় আমাদের নদী তীরবর্তী এলকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বেগ পেতে হচ্ছে। মানবজমিন

ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক করুন

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*