মায়ের মমতা ছাড়া কে থাকে ভালো …

শাহনাজ শারমিন: মায়ের এক ধার দুধের দাম কাটিয়া গায়ের চাম … পাপোশ বানাইলেও ঋণের শোধ হবে না …এমন দরদী ভবে কেউ হবেনা আমার মা গো … পিতা আনন্দে মাতিয়া, সাগরে ফেলিয়া … সেই যে চইলা গেল ফিরা আইল না … মায়ের ধরিয়া যঠরে, কত কষ্ট করে … ফকির আলমগীর গানের ভাষায় বলেছিলেন মায়ের প্রতি মায়ার বাধঁনের কথা।

ছোট্ট একটা শব্দ। মা। এক অক্ষরের। কিন্তু কী বিশাল তার পরিধি! সৃষ্টির সেই আদিলগ্ন থেকে মধুর এ শব্দটি শুধু মমতার নয়, ক্ষমতারও যেন সর্বোচ্চ আধার।

‘পথের ক্লান্তি ভুলে … স্নেহভরা কোলে তব মা গো … বলো কবে শীতল হবো।’ হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের গানের মতো শীতল হওয়ার জন্য আমাদের মাকেই প্রয়োজন। ১০ মাস ১০ দিন ধরে গর্ভধারণ। নাড়িছেঁড়া ধনটির জন্য জীবনের সবটুকু নিঃশ্বাস বাজি রাখা। ক’জন পারে? শুধু মা ছাড়া। এমন সুন্দর একটা শব্দ। এমন প্রশান্তির একটা ডাক। মায়ের মতো আপন কেউ নেই।

একটা চাঁদ ছাড়া রাত আঁধার কালো … মায়ের মমতা ছাড়া কে থাকে ভালো …. মা গো মা … তুমি চোখের এতো কাছে থেকেও দূরে কেন বলোনা মা গো মা … একটু স্নেহ, একটু আদর একটু তোমার মায়া …পাইনি মাগো অনেক বছর … মনে আছে কুমার বিশ্বজিৎ এর কন্ঠে গাওয়া গানটির কথা! জন্মদাত্রী হিসেবে আমার, আপনার, সবার জীবনে মায়ের স্থান সবার ওপরে। তাই তাকে শ্রদ্ধা-ভালোবাসা জানানোর জন্য একটি বিশেষ দিনের হয়তো কোনো প্রয়োজন নেই।

 

সন্তানের মুখে একটি বার মা ডাক কিংবা প্রিয় সন্তানের মুখটি ক্ষণিকের জন্য দেখা হলেই তো মায়ের জন্য স্বর্গীয় সুখ। কথায় আছে- কুসন্তান যদিও থেকে থাকে। কুমাতা কখনও নয়। কোনো মা, তা তিনি যে পেশাতেই থাকুন না কেন, যত কুশ্রীই হন না কেন, সন্তানের কাছে তিনি কিন্তু দেবীর মতোই। সবচেয়ে আদর্শ আর প্রিয় মুখটিই মায়ের।

ইসলামে ‘মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেশত’ পাওয়ার কথা বলা হয়েছে। খ্রিস্টধর্মেও রয়েছে ‘মাদার মেরির’ বিশেষ তাৎপর্য। সেই মায়ের জন্য কি-না বছরে একটা মাত্র দিন!

মা ছাড়া তো কোনো গতিও নেই। মা থাকলেই গতি সঞ্চার হয়। যেমন, কিছু হারিয়ে গেলে মা খুঁজে বের করে দেন। আপনি আমি বলার আগেই মা বুঝে যান কী প্রয়োজন। এক পলক তাকালেই মা বুঝে যান মনের কী অবস্থা! যত যন্ত্রনাই দেন না কেন তিনিই আপনার সবকিছুই হাসিমুখে মেনে নেন। পেট ভরে তৃপ্তিতেই একমাত্র মায়ের রান্নাই খাওয়া যায়। সফলতার জন্য মা-ই দোআ আগে করেন। বাসায় না ফেরা পর্যন্ত চিন্তায় থাকেন তিনি। যত বড়ই হই না কেনো আমরা মায়ের কাছে সেই আদরের ছোট্টটিই কিন্তু থাকি। তিনিই একমাত্র মানুষ যাকে মনের কথা নির্দ্বিধায় বলা যায়।

পৃথিবীর বুকে এই একটি মানুষই আছে, যার ভালবাসা কখনো খন্ডন করা যায় না। জীবনে চলার পথে প্রত্যেকটি মুহূর্তে একটি সন্তানের সাথী হয় এই মায়ের নি:স্বার্থ ভালবাসা আর অন্তরের গভীর থেকে আসা দোয়া।

ad
ad

আরও সর্বশেষ

ad
ad

আরও সর্বাধিক পঠিত

আগের সংবাদ
পরের সংবাদ